/

৩৮তম প্রিলি. সার্কুলারের আগে চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ করার দাবি

জব স্টাডি নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিতঃ ৩:৫৫ অপরাহ্ণ | মে ০৫, ২০১৭

জব স্টাডি: চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ বছরে উন্নীতকরণের দাবিতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আজ শুক্রবার মানববন্ধন করেছেন সাধারণ ছাত্র পরিষদের ব্যানারে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। তারা ৩৮তম বিসিএস সার্কুলারের আগে চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ করার দাবি জানিয়েছে ।

সাংগঠনিক সম্পাদক নিত্যানন্দ সরকার বলেন, “জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটি ২১তম বৈঠকে ৩২ বছর করার সুপারিশ জানান। নবম জাতীয় সংসদে ১৪তম অধিবেশনে ৩৫ বছরের প্রস্তাবটি প্রথম প্রস্তাব হিসেবে গৃহীত হয়। “সেই সঙ্গে ‌‘বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র পরিষদ’ এ দাবি বাস্তবায়নের জন্য পাঁচ বছর ধরে অকাট্য যুক্তি তুলে ধরে অহিংস পদ্ধতিতে আন্দোলন করে আসছে। তাই আমরা ৩৮তম বিসিএস সার্কুলারের আগেই এর বাস্তবায়ন চাই।”

আরেক সাংগঠনিক সম্পাদক শিব্বির আহমেদ বলেন, “আমাদের গড় আয়ু যখন ৪৫ ছিল, তখন চাকরিতে প্রবেশের ছিল ২৭। গড় আয়ু যখন ৫০ ছাড়ালো তখন প্রবেশের বয়স হল ৩০। বর্তমানে গড় আয়ু ৭১.৬ মাস। তাহলে চাকরিতে প্রবেশের বয়স কত হওয়া উচিত?”

মানববন্ধনে ছাত্র পরিষদের সভাপতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র আল আমিন রাজু বলেন, ‘সংসদের চলতি অধিবেশনে চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩৫ বছর করা নিয়ে ইতিবাচক ভূমিকায় না এলে আমরা আমাদের ন্যায্য অধিকার আদায়ে বিকল্প পথ খুঁজব।’
সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সবুজ ভূঁইয়া বলেন, উন্নত দেশে চাকরিতে প্রবেশের নির্দিষ্ট কোনো বয়সসীমা নেই, শুধু অবসরের আছে। ভারতে চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৯, শ্রীলঙ্কায় ৪৫, মালয়েশিয়ায় ৩৫, ইন্দোনেশিয়ায় ৪৫, সিঙ্গাপুরে ৪০, সুইডেনে ৪৭, কাতারে ৩৫, নরওয়েতে ৩৫, ফ্রান্সে ৪০, যুক্তরাষ্ট্রে ৫৯, কানাডায় ৫৯, দক্ষিণ আফ্রিকায় ৪০। উন্নত বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলার জন্য চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ বছর করা প্রয়োজন। তিনি আরো বলেন- “দীর্ঘ দিন ধরে আমরা চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ করার দাবি জানিয়ে আসছি। অনেক সময় দিয়েছি আর নয়। চলতি সংসদ অধিবেশেনে চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩৫ বছর করার ইতিবাচক ভুমিকা না আসলে আমরা আমাদের ন্যায্য অধিকার আদায়ে কঠোর কর্মসূচি দিতে বাধ্য হব।

মানববন্ধনে আরও বক্তব্য দেন শিব্বির আহমেদ, সেলিম হোসেন, আলী রেজা, হারুন অর-রশিদ, রাকিবুল হাসান, শাহদাত হোসেন, ইউসুফ ইলিয়াস, শাখাওয়াত শামিম, বিনয় বিশ্বাস ও সুমি আক্তার।