/

বাংলাদেশ ব্যাংকের সহকারী পরিচালক পদে লিখিত পরীক্ষার প্রস্তুতি

জব স্টাডি নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিতঃ ৩:৪৯ অপরাহ্ণ | জুলাই ২৮, ২০১৭

মো. আজহারুল ইসলাম: বাংলাদেশ ব্যাংকের সহকারী পরিচালক পদে নিয়োগের প্রিলিমিনারী পরীক্ষার রেজাল্ট প্রকাশিত হয়েছে ১৮ জুলাই ২০১৬। তাই বলা যায়, লিখিত পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য খুব বেশি সময় পাচ্ছেন না আপনি। এখন দরকার প্রস্তুতির একটা সুন্দর পরিকল্পনা করে ফেলা এবং সে অনুযায়ী নিজেকে তৈরি করা।

লিখিত পরীক্ষা মোট ২০০ নম্বরের, সময় ২ ঘণ্টা। পরীক্ষায় সাধারণত ৭টি বিষয়ের ওপর উত্তর করতে হয়। গণিত-৩০, Comprehension-30, Focus writing/Essay-30, Analytical/Logical argument/Conversation-30, বাংলা প্রবন্ধ লিখন-৩০, বাংলা থেকে ইংরেজি অনুবাদ-২৫, ইংরেজি থেকে বাংলা অনুবাদ-২৫। পরীক্ষায় অল্প সময়ে নির্দিষ্ট উত্তরপত্রে অনেকগুলো বিষয় লিখতে হয়। তাই বিচক্ষণ, দক্ষ এবং সময় সচেতন হওয়ার বিকল্প নেই।প্রস্তুতির জন্য প্রথম কাজ হবে বিগত ৫ বছরের সহকারী পরিচালক (এডি) নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন ও উত্তর সম্বলিত একটি ভালো রেফারেন্স গাইড সংগ্রহ করা। এ প্রশ্নপত্রগুলো হতে পারে প্রস্তুতি পর্বে সবচেয়ে ভালো গাইডলাইন। যদিও এটা বলার সুযোগ নেই যে, প্রশ্নের ধরন পরিবর্তন হবে না। এবার প্রশ্নগুলো এক নজরে দেখে ফেলুন। দেখবেন পরীক্ষার প্রশ্ন ধরন সংক্রান্ত একটা পরিষ্কার ধারণা পেয়ে যাবেন আপনি। অভিজ্ঞতা বলে বাংলাদেশ ব্যাংকে তাদের চাকরি হয় যাদের বেসিক ভালো। তাই আপনার লক্ষ্য হোক লিখিত জন্য বেসিক ইম্প্রোভ করা। কিভাবে প্রস্তুতি নিবেন চলুন সে কৌশলগুলো জেনে নেই।

লিখিত পরীক্ষায় সবচেয়ে গুরুত্ব দিতে হবে গণিত অংশে। গণিতে সাধারণত ৩টি গাণিতিক সমস্যার সমাধান করতে হয়। সবগুলো সমস্যা সঠিকভাবে সমাধান করতে না পারলে চাকরি পাবার সম্ভাবনা আপনার অনেক কমে যাবে। তাই এ অংশে বেশি গুরুত্ব দিতে হবে। আপনার বেসিক দুর্বল হলে সেটা কাটানোর চেষ্টা করুন। নবম-দশম শ্রেণী লেভেলের গণিত অনুশীলন করতে পারেন। চূড়ান্ত প্রস্তুতির জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকসহ বিভিন্ন ব্যাংকের বিগত বছরের লিখিত গণিত সমাধান করতে পারেন, খুব কাজ দিবে। এছাড়াও অনুশীলনের জন্য ইংরেজি ভার্সনের প্রচলিত যে কোনো ভালো একটি গণিত বই দেখতে পারেন। গণিতে ভালো করার কৌশল হোক প্রতিদিন গণিত অনুশীলন করা।

Comprehension অংশে একটি ইংরেজি অনুচ্ছেদ থাকে। সে আলোকে ৫/৬টি প্রশ্নের উত্তর করতে হয়। অনুচ্ছেদ থেকে কপি না করে নিজের ভাষায় সাবলীলভাবে লিখলে ভালো মার্ক পাওয়া সম্ভব। Comprehension অংশে ভালো করতে দৈনিক পত্রিকা ও GRE লেভেলের বই থেকে প্রশ্ন-উত্তর অংশ অনুশীলন করতে পারেন।

Focus Writing/Essay, Analytical Argument, বাংলা প্রবন্ধ এ তিনটি বিষয়ের ৯০ নম্বরের প্রস্তুতি এক সঙ্গে নিতে পারেন। Focus writing এবং বাংলা প্রবন্ধ লিখনে সাধারণত অর্থনৈতিক, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ইস্যুতে লিখতে হয়। লেখাগুলো লিখতে হয় উত্তরপত্রে এক পাতার (১-২ পৃষ্ঠা) নির্দিষ্ট পরিসরের মধ্যে। Analytical argument-এ কোনো বিষয়ের ওপর একটি বিবৃতি থাকে। বিবৃতির পক্ষে/বিপক্ষে নিজস্ব যুক্তি, তথ্য, উপাত্ত লিখতে হয়।

গুরুত্বপূর্ণ এ তিনটি বিষয়ে ভালো করতে কিছু কৌশল অনুসরণ করা যায়। যেমন- পূর্বের প্রশ্নগুলো অনুসরণ করে এ সংক্রান্ত ২০-৩০টি টপিক নির্ধারণ করে সেগুলোর ওপর প্রস্তুতি নিতে পারেন। এতে আপনার আত্মবিশ্বাস লেভেল বৃদ্ধি পাবে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে টপিক কমন নাও পড়তে পারে। তাই মুক্ত হস্তে (free hand) লেখার অভ্যাস করুক। এজন্য কোনো টপিকের ওপর ধারণা নিয়ে নিজের মতো করে লিখতে পারেন। আশা করি এতে আপনার লেখার দক্ষতা বৃদ্ধি পাবে।

নির্দিষ্ট পরিসরে গুছিয়ে লিখতে হয় বলে এক্ষেত্রে উপস্থাপনা, তথ্য ও উপাত্ত প্রদান এবং যুক্তি উপস্থাপন গুরুত্বপূর্ণ। এ জন্য আমি কৌশল হিসেবে আলাদা একটা খাতা মেন্টেন করতাম। কোথাও প্রাসঙ্গিক যুক্তি, তথ্য ও উপাত্ত পেলে টপিক অনুযায়ী ওই খাতায় লিখে রাখতাম। এটা খুব কাজ দেয়। পরীক্ষার আগে সহজে রিভিশন দেয়া যায়, আবার পরীক্ষায় যে টপিকে লিখতে হোক না কেন এসব যুক্তি, তথ্য ও উপাত্ত সাবলীলভাবে ব্যবহার করা যায়। কমপক্ষে একটি ইংরেজি (যেমন-Financial Express) ও একটি বাংলা দৈনিক পত্রিকা থেকে অর্থনীতি সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো এবং উপ-সম্পাদকীয় নিয়মিত পড়তে পারেন ও প্রয়োজনীয় তথ্য টুকে রাখতে পারেন।

বিগত বছরগুলোর লিখিত পরীক্ষার প্রশ্ন পর্যালোচনা করে দেখা যায় অধিকাংশ ক্ষেত্রে অনুবাদগুলো বেশ কঠিন হয়ে থাকে। প্রস্তুতি পর্বে যত বেশি অনুশীলন করা হবে, অনুবাদ অংশে তত ভালো করার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পাবে। এজন্য দৈনিক পত্রিকা থেকে সম্পাদকীয়, বিশেষ প্রবন্ধগুলো অনুবাদ চর্চা করুন নিয়মিত।

লিখিত পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য শেষ পরামর্শ হল- গণিত, অনুবাদ এবং মুক্ত হস্তে (free hand) লেখার ওপর গুরুত্ব দিবেন বেশি। পরীক্ষার হলে সময় ব্যবস্থাপনার প্রতি খেয়াল রাখবেন। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে যাতে সবগুলো প্রশ্নের সুন্দরভাবে উত্তর করতে পারেন। আত্মবিশ্বাস নিয়ে পরিকল্পনা অনুসারে প্রস্তুতি এনে দিতে পারে কাঙ্ক্ষিত সাফল্য। সবার জন্য অনিঃশেষ শুভ কামনা।

লেখক : সহকারী পরিচালক, বাংলাদেশ ব্যাংক।