/

পোশাকের মূল্য বৃদ্ধি করতে ইউরোপীয় ক্রেতাদের প্রতি আহবান

জব স্টাডি নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিতঃ ১:৫০ অপরাহ্ণ | জুলাই ২৯, ২০১৭

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ দেশের তৈরি পোশাক কারখানাগুলো আধুনিক ও নিরাপদ করায় পোশাকের মূল্য বৃদ্ধি করতে ইউরোপীয় ক্রেতাদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী আজ বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ও বাংলাদেশের মধ্যে ৩য় বিজনেস ক্লাইমেট ডায়ালগে এ আহবান জানান। বাণিজ্যমন্ত্রী এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, ক্রেতাদের পরামর্শ মোতাবেক কারখানায় শ্রমিকদের নিরাপদ ও কর্মবান্ধব পরিবেশ নিশ্চিত করা হয়েছে। এ জন্য কারখানার মালিকদের বিপুল পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করতে হয়েছে। কিন্তু তৈরি পোশাকের মূল্য বৃদ্ধি করা হয়নি, ইউরোর মূল্য পতনের ফলে তৈরি পোশাকের মূল্য কমেছে।

মন্ত্রী বলেন, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের চাহিদা মোতাবেক বাংলাদেশে মোট বিনিয়োগের পরিমাণ ৪০ ভাগ থেকে ৪৯ ভাগে বৃদ্ধি করা হয়েছে। এতে করে বাংলাদেশে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের বিনিয়োগ বাড়বে। ক্রেতাগোষ্ঠীর সংগঠন অ্যাকোর্ড এর বাংলাদেশে কারখানা পরিদর্শনের মেয়াদ ২০১৮ সালের মে মাসে শেষ হবে। এর পর পরিস্থিতি বিবেচনা করে আলাপ আলোচনার মাধ্যমে পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করা হবে।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সাথে বাংলাদেশের এটা তৃতীয় ডায়ালগ। গত বছরের মে এবং ডিসেম্বর মাসে দু’টি ডায়ালগ হয়েছে। সেখানে ইমপোর্ট ডিউটি, কাস্টমস ব্যবস্থাপনা, বাণিজ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধি, ‍ওষুধ রপ্তানি, লাইসেন্স এবং বিনিয়োগ, অর্থনৈতিক ও ট্যাক্স রিজিওম নিয়ে ৫টি ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠন করা হয়েছিল। সেখানে সমস্যা চিহ্নিত করে তা সমাধান করা হয়েছে। তিনি বলেন, সামনের দিনগুলোতেও চলমান বাণিজ্য বিষয়ে যে কোনো সমস্যা দেখা দিলে তা আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করা হবে।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, যুক্তরাজ্য ব্রেকজিট কার্যকরের পরও বাংলাদেশের সাথে চলমান বাণিজ্যনীতির কোনো পরিবর্তন হবে না। বাংলাদেশ মোট রপ্তানি বাণিজ্যের ৫৪ ভাগ ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সাথে করে আসছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ১শ’টি স্পেশাল ইকোনমিক জোনে বিনিয়োগে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন এগিয়ে আসবে বলে আশা করছি।

ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ডেলিগেশন প্রধান অ্যাম্বাসেডর পিয়েরি মায়াডোন বলেন, বাংলাদেশের সাথে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের বাণিজ্যিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক অব্যাহত থাকবে। আগামী দিনগুলোতে বাংলাদেশে বিনিয়োগ আরো বাড়বে। বাংলাদেশের তৈরি পোশাক কারখানার মান অনেক উন্নত হয়েছে। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং দারিদ্র্য বিমোচনে সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে।

বিজনেস ক্লাইমেট ডায়ালগ এ ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ডেলিগেশনের নেতৃত্ব দেন অ্যাম্বাসেডর পিয়েরি মায়াডোন। বাংলাদেশের পক্ষে নেতৃত্ব দেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

অনুষ্ঠানে ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূত আলিসন ব্লাক, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের পক্ষে ঢাকাস্থ স্পেনের অ্যাম্বাসেডর ডি. আলভেরো ডি সালাস জিমিনেজ ডি আজারাতে, ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূত মিকায়েল হেমনিটিউইনথার, নেদারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত লিওনি কুইলিনাইর, ফ্রান্সের হেড অফ ইকোনমিক ডিপার্টমেন্ট ফ্রানকোইস পিটিট, সুইডেনের কমাশিয়াল অফিসার তাজিন চৌধুরী অংশ গ্রহণ করেন।

বাংলাদেশের পক্ষে অন্যান্যের মধ্যে বাণিজ্য সচিব শুভাশীষ বসু, বিডার চেয়ারম্যান কাজী এম আমিনুল ইসলাম, এনবিআর-এর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান, রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর ভাইস-চেয়ারম্যান বিজয় ভট্রাচার্য্য, আমদানি-রপ্তানির প্রধান নিয়ন্ত্রক আফরোজা খান ও জয়েন্টস্টক কোম্পানি এন্ড ফার্মসএর রেজিস্টার মো. মোশাররফ হোসেন এতে অংশ নেন।