/

শিক্ষা সনদ গলায় ঝুলিয়ে রাস্তা ঝাড়ু দেবে আন্দোলকারীরা

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

প্রকাশিতঃ ১১:০০ পূর্বাহ্ণ | মার্চ ১৮, ২০১৮

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কার ও মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে এবার ব্যতিক্রমী কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। সে অনুয়ায়ী আগামী ২৫ মার্চ শিক্ষা সনদ গলায় ঝুলিয়ে রাস্তা ঝাড়ু দিবে আন্দোলনকারীরা।

রোববার সকাল ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ মিছিল পরবর্তী এক সমাবেশে এ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের ব্যানারে আগামী ২৫ মার্চ গলায়, কাঁধে বা হাতে সব শিক্ষা সনদ ঝুলিয়ে রাজু ভাস্কর্য থেকে শহীদ মিনারগামী রাস্তা ঝাড়ু দিয়ে  পরিষ্কার করবেন শিক্ষার্থীরা।

আন্দোলনকারীরা জানান, অহিংস প্রতিবাদের অংশ হিসেবে নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। এভাবেই তাঁরা সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চান।

আন্দোলনের সমন্বয়ক হাসান আল মামুন জানান, কোটা সংস্কারের দাবিতে আগামী ২৫ মার্চ  পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান হবে। যার অংশ হিসেবে শাহবাগ থেকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার পর্যন্ত রাস্তা ঝাড়ু দিয়ে পরিষ্কার করা হবে। এসময় সবাই গলায় নিজ নিজ শিক্ষা সনদ প্রদর্শন করবে।

তিনি আরো জানান, আগামী ২৯ মার্চ বিকেল ৪টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নাগরিক সমাবেশের আয়োজন করেছে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ। এতে শিক্ষাবিদ, মুক্তিযোদ্ধাসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ অংশগ্রহণ করবে।

এদিকে রোববার সকাল ১০টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে, যা ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে টিএসসি রাজু ভাস্কর্যের সামনে সমাবেশে মিলিত হয়। এতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহস্রাধিক শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন জায়গা থেকে আসা চাকুরি প্রত্যাশীরা অংশগ্রহণ করে।

প্রসঙ্গত, গত ১৪ ফেব্রয়ারি থেকে পাঁচ দফা দাবিতে আন্দোলন করে আসছে কোটা সংস্কার প্রত্যাশীরা। দাবিগুলো হলো- কোটা সংস্কার করে ৫৬ থেকে ১০ শতাংশে কমিয়ে আনা, কোটায় প্রার্থী না পাওয়া গেলে শূন্যপদগুলোতে মেধার ভিত্তিতে নিয়োগ দেয়া, চাকুরিতে একাধিকবার কোটা সুবিধা ব্যবহার না করা, কোটার কোনো ধরনের বিশেষ নিয়োগ পরীক্ষা না নেওয়া, চাকুরির ক্ষেত্রে সবার জন্য অভিন্ন বয়সসীমা নির্ধারণ করা।

এ লক্ষ্যে গত ১৪ মার্চ আন্দোলনকারীরা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে স্মারকলিপি জমা দেয়ার উদ্দেশ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে থেকে একটি মিছিল নিয়ে হাইকোর্টের সামনে আসলে পুলিশ আন্দোলনকারীদের উপর টিয়ারশেল নিক্ষেপ ও লাঠিচার্জ করে। এ সময় ঘটনাস্থলে আন্দোলনকারীদের অন্তত ১৫ জন আহত হন। এছাড়া দুই পর্যায়ে ৫৩ জনকে আটক করে পুলিশ। পরে আটককৃতদের মুক্তির দাবিতে শাহবাগ থানার সামনে বিক্ষোভ করে শিক্ষার্থী। পরে পুলিশ আন্দোলনকারীদের ছেড়ে দেয়। কিন্তু এ ঘটনায় পুলিশি কাজে বাধা দেয়ার অভিযোগ এনে শাহবাগ থানায় অজ্ঞাতনামা ৭০০-৮০০ আন্দোলনকারীর বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।

স্মার্ট ক্যারিয়ার গড়তে join করুনঃ Job Study : Build your smart career